অভয়নগরে প্রতিবন্ধী ও দুস্থদের ভাতা কার্ড দেওয়ার নামে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র। - দৈনিক আজকের দুর্নীতি
ঢাকাবুধবার , ৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

অভয়নগরে প্রতিবন্ধী ও দুস্থদের ভাতা কার্ড দেওয়ার নামে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র।

দৈনিক আজকের দুর্নীতি
সেপ্টেম্বর ৭, ২০২২ ৯:১৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মোঃ কামাল হোসেন, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

অভয়নগরে প্রেমবাগ ইউনিয়নে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড ও দুস্থদের ব্যাংক ঋণ দেওয়ার কথা বলে প্রতারণা করে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। প্রতারক চক্রটি উপজেলার শ্রীধরপুর ইউনিয়ন থেকেও অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়াগেছে।
প্রেমবাগ ইউনিয়নের বনগ্রামের দিনমজুর আল আমিন জানান, প্রায় তিন মাস আগে একটি মটরসাইকেলে ২০ থেকে ২৫ বছর বয়সী এক তরুণ বাইক চালিয়ে গ্রামের মোড়ে দোকানের সামনে দাঁড়ায়। তার সাথে মধ্য বয়সী এক যুবক ছিলো তার দুই হাতের আঙ্গুল বাঁকানো। তারা দোকানের লোকজনদের জানায় আমরা ইসলামী ব্যাংক থেকে এসেছি এলাকার দুস্থ্য মহিলাদের সংগঠিত করে গাভী ক্রয় করার জন্য ঋণ দিচ্ছি। তখন দোকানে থাকা লোকজন দিনমজুর আল আমিনের স্ত্রী রুপালী বেগমকে দেখিয়ে দেয়। ওই প্রতারক চক্র রুপালী বেগমের নাম ঠিকানা তাদের খাতায় তুলে নিয়ে বলে ঋণ পেতে হলে পাঁচশত টাকা জমা দিতে হবে। রুপালী বেগম ধার করে তাদের হাতে পাঁচশত টাকা তুলে দিলে প্রতারক চক্র চলে যায়। পরে তারা দুই দফায় রুপালী বেগমমের কাছ থেকে আরো চার হাজার পাঁচশত টাকা নেয়।
এর আরো কিছুদিন পর ওই প্রতারক চক্র প্রেমবাগ ইউনিয়নের পুড়াটাল গ্রামের উত্তম মন্ডলের বাক প্রতিবন্ধী ছেলে রুদ্র মন্ডল (১১) কে প্রতিবন্ধী কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে ৬ হাজার ৫’শ টাকা ও বনগ্রামের শারীরিক প্রতিবন্ধী আবু তালেবকে কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে তার স্ত্রী মমতাজ বেগমের কাছ থেকে ১২ হাজার ৫’শ টাকা হাতিয়ে নেয়।
ওই প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ উঠেছে তারা উপজেলার শ্রীধরপুর ইউনিয়নের শংকরপাশা খেয়াঘাট থেকে তিনটি মুদি দোকান থেকে ঋণ দেওয়ার কথা বলে ১৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তারা লোক লজ্জার ভয়ে সাংবাদিকদের তথ্য দেয় নি।
এ ব্যপারে জানাতে চাইলে থানার অফিসার ইনচার্য একেএম শামীম হাসান বলেন, ‘এ ধরনের প্রতারণার কোন অভিযোগ কেউ আমাকে করেনি। অভিযোগ পেলে প্রতারকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।অভয়নগরে প্রতিবন্ধী ও দুস্থদের ভাতা কার্ড দেওয়ার নামে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র।

মোঃ কামাল হোসেন, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

অভয়নগরে প্রেমবাগ ইউনিয়নে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড ও দুস্থদের ব্যাংক ঋণ দেওয়ার কথা বলে প্রতারণা করে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। প্রতারক চক্রটি উপজেলার শ্রীধরপুর ইউনিয়ন থেকেও অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়াগেছে।
প্রেমবাগ ইউনিয়নের বনগ্রামের দিনমজুর আল আমিন জানান, প্রায় তিন মাস আগে একটি মটরসাইকেলে ২০ থেকে ২৫ বছর বয়সী এক তরুণ বাইক চালিয়ে গ্রামের মোড়ে দোকানের সামনে দাঁড়ায়। তার সাথে মধ্য বয়সী এক যুবক ছিলো তার দুই হাতের আঙ্গুল বাঁকানো। তারা দোকানের লোকজনদের জানায় আমরা ইসলামী ব্যাংক থেকে এসেছি এলাকার দুস্থ্য মহিলাদের সংগঠিত করে গাভী ক্রয় করার জন্য ঋণ দিচ্ছি। তখন দোকানে থাকা লোকজন দিনমজুর আল আমিনের স্ত্রী রুপালী বেগমকে দেখিয়ে দেয়। ওই প্রতারক চক্র রুপালী বেগমের নাম ঠিকানা তাদের খাতায় তুলে নিয়ে বলে ঋণ পেতে হলে পাঁচশত টাকা জমা দিতে হবে। রুপালী বেগম ধার করে তাদের হাতে পাঁচশত টাকা তুলে দিলে প্রতারক চক্র চলে যায়। পরে তারা দুই দফায় রুপালী বেগমমের কাছ থেকে আরো চার হাজার পাঁচশত টাকা নেয়।
এর আরো কিছুদিন পর ওই প্রতারক চক্র প্রেমবাগ ইউনিয়নের পুড়াটাল গ্রামের উত্তম মন্ডলের বাক প্রতিবন্ধী ছেলে রুদ্র মন্ডল (১১) কে প্রতিবন্ধী কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে ৬ হাজার ৫’শ টাকা ও বনগ্রামের শারীরিক প্রতিবন্ধী আবু তালেবকে কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে তার স্ত্রী মমতাজ বেগমের কাছ থেকে ১২ হাজার ৫’শ টাকা হাতিয়ে নেয়।
ওই প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ উঠেছে তারা উপজেলার শ্রীধরপুর ইউনিয়নের শংকরপাশা খেয়াঘাট থেকে তিনটি মুদি দোকান থেকে ঋণ দেওয়ার কথা বলে ১৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তারা লোক লজ্জার ভয়ে সাংবাদিকদের তথ্য দেয় নি।
এ ব্যপারে জানাতে চাইলে থানার অফিসার ইনচার্য একেএম শামীম হাসান বলেন, ‘এ ধরনের প্রতারণার কোন অভিযোগ কেউ আমাকে করেনি। অভিযোগ পেলে প্রতারকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।