অভয়নগরে স্কুল শিক্ষক হীরামণ মন্ডলের খুঁটির জোর কোথায়? - দৈনিক আজকের দুর্নীতি
ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১১ আগস্ট ২০২২

অভয়নগরে স্কুল শিক্ষক হীরামণ মন্ডলের খুঁটির জোর কোথায়?

দৈনিক আজকের দুর্নীতি
আগস্ট ১১, ২০২২ ৭:০৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

মোঃ কামাল হোসেন, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

যশোরের অভয়নগর উপজেলার ২নং সুন্দলী ইউনিয়নের রাজাপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হীরামণ মন্ডলের খুঁটির জোর কোথায়?
সরেজমিনে এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বিতর্কিত ঐ শিক্ষক এলাকার সুন্দরী কোন মেয়ে দেখলে লোলুপ দৃষ্টি পড়ে তার দিকে, যে কারনে সে মনিরামপুর উপজেলাসহ বেশ কিছু এলাকায় একাধিক নারীর সাথে অবৈধ অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। এই ভাবে সে অনেক বিধবাসহ স্বামী প্রবাসে থাকার সুযোগে সেই সব নারীদের বেশি টার্গেট করে। সম্প্রতি ঐ শিক্ষককের অনৈতিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী ফুঁসে উঠেছে। উল্লেখ‍্য, সম্প্রতি ঐ শিক্ষককের অনৈতিক কর্মকান্ডের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ঐ ভিডিও ভাইরাল হলে এলাকা জুড়ে তুমুল সমালোচনার ঝড় বয়ে চলেছে। খোঁজ নিয়ে আরো জানা গেছে, ঐ স্কুলের অভিভাবক মহলের পক্ষ থেকে বিতর্কিত ঐ শিক্ষকের চাকরি থেকে অব্যহতি চেয়ে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। এলাকার ঐ স্কুলের একাধিক অভিভাবকের সাথে কথা হলে তারা বলেন, অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত শিক্ষককে চাকরি থেকে অব্যহতি না দিলে আমাদের কোন শিশু ছাত্র ছাত্রী স্কুলে পাঠাবোনা, সে চরিত্রহীন নারী লোভী। তার কাছে আমাদের সন্তানেরা নিরাপদ নয়। আমরা ঐ দুশ্চরিত্র নারী লোভী শিক্ষকের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি চাই এবং ঐ শিক্ষককের বিরুদ্ধে আমরা লিখিত অভিযোগ করেছি, লিখিত অভিযোগের পরেও ঐ শিক্ষক রয়েছে বহাল তবিয়তে যা আমরা মেনে নিতে পারছিনা বা পারবোনা।
অভিযোগের বিষয়ে রাজাপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মিন্টু রায়ের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অভিভাবক মহলের লিখিত অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি, যে জন্য ঐ শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহোদয়সহ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত আবেদন করেছি এখন তাদের তরফ থেকে ঐ শিক্ষককের বিরুদ্ধে কি আইনগত ব্যবস্থা নিবেন তা আমি বলতে পারবোনা।
এবিষয়ে ঘটনা জানার জন্য ঐ শিক্ষকের বাড়ি গেলে, সাংবাদিক পরিচয় দিলে ঐ শিক্ষককের স্ত্রী উপজেলার মাগুরা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা বনশ্রী মন্ডল বলেন, আমার স্বামী যা ইচ্ছে করুক তার জন্য আপনাদের কি? আমার স্বামী কোথায় গেছে জানিনা, তার ফোন নং ও আমার কাছে নেই।
এব্যাপারে রাজাপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিধান মল্লিক জানান, ঐ শিক্ষক কোথায় আছে জানিনা, এর বেশি কিছু আমি বলতে পারবোনা, যেটা হয়েছে তা ঐ শিক্ষকের বিষয়, আমার কিছু করার নেই। অভয়নগর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মাসুদ করিম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে আইনানুগ ব‍্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।