যৌ * ন * ক * র্মী সামাজিক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ কতটা গ্রহণযোগ্য! - দৈনিক আজকের দুর্নীতি
ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৭ মার্চ ২০২২

যৌ * ন * ক * র্মী সামাজিক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ কতটা গ্রহণযোগ্য!

অনলাইন
মার্চ ১৭, ২০২২ ৩:০৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সানি লিওনের জীবন, ব্যবসা এসব নিয়ে ব্যক্তিগতভাবে আমার কিছু বলার নেই, ইতিহাসে এবং সব সমাজে যৌন কর্মীদের শহরের বাইরে বা আলাদা পাড়ায় বিচ্ছিন্ন রাখা হতো এবং হয়। পশ্চিমের দেশগুলো ছাড়াও ব্যাংকক, ভারত, বাংলাদেশসহ সব দেশেই এই পেশাজীবীদের আলাদা পাড়ায় রাখা হয়। এর কারণ ঘৃণা নাও হতে পারে। হয়তো সমাজের শিশু, কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীদের মূল্যবোধের নিরাপত্তার কথা ভেবেই এমনটা করা হয়।

পর্ন তারকা কিংবা যৌনকর্মী এমন একজন যাকে ঘরে বসে একা একা দেখা যায় কিংবা তার সঙ্গ উপভোগ করা যায়। কিন্তু সামাজিক অনুষ্ঠানে তাদের প্রবেশ নিয়ে এখনো মতভেদ আছে। বড়দের বিশেষ ধরণের বিনোদনের জন্য তারা যেমন যৌন উদ্দীপনামূলক নাচ, দেহ প্রদর্শন ও দেহের অবজেক্টিফিকেশন করে, সেই একই ধরণের পোশাক পরে, নাচ ও মুদ্রা প্রদর্শন করে যখন তারা সামাজিক অনুষ্ঠানে নাচে-গায়, তখনই আপত্তির প্রশ্নটি আসে। যেমনটা এসেছে সানি লিওনের ক্ষেত্রে।

প্রথমত বাংলাদেশের একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে আইটেম গার্ল বা বয় হিসেবে নাচ-গানের জন্য কেন বাইরে থেকে শিল্পী ভাড়া করে আনতে হবে? দেশে কি তারকার অভাব পড়েছে? যদি আনতেই চাই তাহলে কেন একজন সাবেক পর্ন তারকাকে পারিবারিক অনুষ্ঠানে আনতে হলো? এটা কি শোবিজ, কোনো ক্লাবের প্রোগ্রাম বা ব্যবসায়িক কোনো আয়োজন? এটা ছিল বিয়ে বাড়ি।

সব সমাজই পর্ন তারকার জীবনকে সাধারণ মানুষের জীবন বা সমাজ থেকে আলাদা করে রাখতে চায়। সানি লিওনকে এখানে একটি মুক্ত পারিবারিক অনুষ্ঠানে এনে আমরা কি আমাদের শিশু কিশোর ও যুব সমাজের কাছে এই বার্তা দিলাম না যে পর্ন জগতে জড়িয়ে আবার স্বাভাবিকতায় ফিরে আসা যায়? এটা তাদের জীবনকে নেতিবাচক দিকে টেনে নিতে পারে।

ইতোমধ্যেই দেশে পর্নোগ্রাফির বিস্তার ও ভয়াবহতা সম্পর্কে অনেক তথ্য জানা যাচ্ছে। শিশুসহ অল্পবয়সী মেয়েরা কিভাবে এই ব্যবসার ফাঁদে জড়িয়ে পড়ছে সেই তথ্যও আসছে। ঠিক এ রকম একটি সামাজিক পরিস্থিতিতে সানি লিওনের মতো আলোচিত পর্ন তারকাকে সামাজিক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ করে নিয়ে আসাটা কতটা ন্যায্য হয়েছে?

আমাদের উচিৎ বড়দের জন্য এই বিশেষ বিনোদন, তার কনটেন্ট ও তাদের কলাকুশলীদের সুস্থ বিনোদন ও সাধারণ তারকাদের সঙ্গে গুলিয়ে না ফেলা এবং শিশু-কিশোরদের নাগালের বাইরে রাখা।

দেশে এখন যেসব গান-নাচ চালু হয়েছে, যা ভাইরাল হচ্ছে, টিকটক-লাইকির মতো অ্যাপ ব্যবহার করে তরুণ-তরুণীদের ডিজে পার্টির যে নাচ গান, এর কোনোটাই সুস্থ সংস্কৃতির পরিচয় বহন করে না। আমাদের উচ্চশিক্ষা, রাজনীতি, সাহিত্য, সংস্কৃতি, পেশা, নাটক, চলচ্চিত্র সব কিছুই এখন নিম্নগামী। প্রযুক্তির অপব্যবহার একটি প্রজন্মকে ভয়াবহ বিপদের মুখে এনে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। এর মধ্যে বিয়ে বাড়িতে সানি লিওনের আবির্ভাব সেই বিপদ আরও বাড়াবে, কমাবে না।

সানি লিওন অবশ্য এ ক্ষেত্রে সফল হয়েছেন। এই জগত থেকে ফিরে এসে মেইনস্ট্রিম মিডিয়াতে স্থান করে নিতে পেরেছেন। এমনই স্থান করে নিয়েছেন যে, বাংলাদেশের মতো একটি দেশের বিয়ের অনুষ্ঠানে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে তাকে অতিথি করে আনা হলো।

তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে যখন অসংখ্য কমবয়সী ছেলে-মেয়েরা নাচল, তখন দেখা গেল যৌনভাব ও সংকেতের অযৌনকরণ। যার ফলে অযৌন পারিবারিক ও সামাজিক আসরও হয়ে গেল যৌনমুদ্রা ও যৌনভাব সংকেত প্রদর্শনের স্টেজ। বিয়ের আসর, হলুদের আয়োজন কি এ ধরণের দৃশ্যায়নের জন্য তৈরি হয়?

পর্ণ তারকার সামাজিকীকরণের মাধ্যমে সমাজের উঠতি ছেলে-মেয়েদের কাছে যে বার্তা যায়, তাতে তারা ঠাহর করতে পারে না যে কোনটা যৌনমুদ্রা ও যৌনভাব আর কোনটা অযৌন শিল্পকলা বা নিছক আনন্দ।

এবার আসি আরেকটি প্রসঙ্গে। কেন এই রকম একটি বিয়ের নাচের অনুষ্ঠানে মুজিবকোটকে ড্রেস কোড করা হলো? বিয়ে বা গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে সাদা পায়জামা-পাঞ্জাবী ও কালো মুজিবকোট পরার মানে কী? সানি লিওনের পেছনে একদল মানুষ যখন মুজিবকোটের মতো পোশাক পরে নাচলো, এটিকে ভয়াবহ অপরাধ বলেই মনে করছি। কারণ মুজিবকোট আমাদের ইতিহাস ও আমাদের পরিচয়ের অংশ।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।